Sharing is caring!

বলিউডের ‘লেডিকিলার’ আখ্যা পেয়েছিলেন রণবীর কাপূর। একের পর এক নায়িকার মন ভেঙে নতুন সম্পর্কে পা বাড়ানোর ইতিহাস গড়েছিলেন তিনি। দীপিকা পাড়ুকোন, ক্যাটরিনা কইফ, অবন্তিকা মালিক, এই তিন তারকার সঙ্গে রণবীরের সম্পর্কের খবরে সিলমোহর পড়েছিল। তা ছাড়া সোনম কপূর, নারগিস ফকরি, নন্দিতা মহতানির মতো খ্যাতনামীদের সঙ্গেও তাঁর রসায়নের গুঞ্জন তৈরি হয়েছিল। তাই অনেকেরই ধারণা হয়েছিল, রণবীর হয়তো চিরকুমার হিসেবেই জীবন যাপন করবেন। সংসার পাতার ইচ্ছে তাঁর নেই। কিন্তু সেই কানাঘুষোকে নস্যাৎ করে বিয়ের পিঁড়িতে বসতে চলেছেন রণবীর। পাত্রী আলিয়া ভট্ট।

সেই ধারণার বশবর্তী হয়েছিলেন রণবীরের মা, অভিনেত্রী নীতু কাপূরও? তাঁর প্রতিক্রিয়ায় সে রকম ধারণা তৈরি হতে পারে। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে তাঁকে প্রশ্ন করেন, ‘আলিয়া যে আপনাদের পরিবারের অংশ হতে চলেছেন, তাতে আপনার কেমন লাগছে?’ নীতু সটান দু’হাত জড়ো করে আকাশের দিকে তাকিয়ে প্রণাম ঠোকেন। বলেন, ‘ধন্যবাদ’। ছেলের বিয়ে করার সিদ্ধান্তে তাঁর মনে যেন প্রশান্তি ভরপুর। তার জন্যই আলিয়ার সঙ্গে ছেলের প্রেম এবং বিয়ের জন্য ঈশ্বরকে ধন্যবাদ জানালেন।

এর আগেই জানা যায়, নীতু ইতিমধ্যে কপূরদের ‘খানদানী’ সোনার হার তাঁর বউমার গলায় পরিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। কাপূর বংশের সেই হারের প্রথম মালকিন ছিলেন রণবীরের ঠাকুমা কৃষ্ণা রাজ কাপূর। তাঁর ছেলে ঋষি কাপূরের সঙ্গে নীতুর বিয়ের পর নিজের বউমার হাতে তুলে দিয়েছিলেন সেই হার। এ বার পালা নীতুর। সেই ‘বহু’ এখন ‘সাস’। শাশুড়ির ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়ে আলিয়ার গলায় পরাবেন তাঁদের পরিবারের ‘খানদানী’ সোনার হার।

প্রসঙ্গত, ঋষির দাদা রণধীরের পরিবারেও এমনটিই ঘটেছে। রণধীর-পত্নী ববিতা তাঁর সোনার গয়না তুলে দিয়েছিলেন তাঁর পরের প্রজন্মকে। তাঁর সম্পত্তির মালিক হয়েছিলেন তাঁর দুই মেয়ে করিশ্মা কপূর এবং করিনা কপূর। সুত্র: আনন্দবাজার।

Sharing is caring!