নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ

 

নোয়াখালীর হাতিয়ায় সাবেক জেলা ছাত্রলীগ নেতা আতিকুল ইসলাম জিন্নুর উপর প্রতিপক্ষের লোকেরা সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত করেছে। তার অবস্থা আশংকাজনক দেখে হাতিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত ডাক্তার উন্নত চিকিৎসার জন্য শুক্রবার রাতে নোয়াখালী ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করেছে। শুক্রবার হাতিয়া পৌরসভার স্থানীয় ছৈয়দিয়া বাজারে এ হামলা ঘটনাটি ঘটে।

স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, জিন্নুর হাতিয়ার বিভিন্ন অনিয়ম ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের বিষয়ে প্রতিবাদ করায় তাকে মেরে ফেলার হুমকী ধমকী দিয়ে আসছে টুটুল মাষ্টার ও উজ্জল । জিন্নুর ওছখালী থেকে চৌমুহনী বাজারের দিকে যাওয়ার পথে স্থানীয় ছৈয়দিয়া বাজারে টুটুল মাষ্টার ও উজ্জলের নেতৃত্বে আগে থেকে ওথঁপেতে থাকা কিছু লোক রিক্সা থামিয়ে তাকে দেশীয় অস্ত্র রড়, কিরিচ, রামদা ও বগিদা দিয়ে এলোপাতাড়ী কুপিয়ে টেনে হিছড়ে খোকা মিয়াগো পুকুর পাড়ের দিকে নিয়ে যায়।

এসময় সে চিৎকার দিলেও ভয়ে কেউ তার কাছে যায়নি। তাকে দুর্বৃত্তরা গুরুতর আহত করে আশংকাজনক অবস্থায় পুকুর পাড়ে রেখে গেলে পরে আমরা কয়েকজন তাকে উপজেলা সরকারী হাসপাতালে নিয়ে যায়।

এদিকে আহত আতিকুল ইসলাম জিন্নুর জানায়, আমি নোয়াখালী জেলা ছাত্রলীগের সাবেক মানব কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক ছিলাম। স্থানীয় সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজীসহ বিভিন্ন রকমের অপরাধমূলক কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করায় গত কয়েক মাস যাবত সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে মেরে ফেলার হুমকী দিয়েছে। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, নোয়াখালী জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক জননেতা একরামুল করিম চৌধুরীর কাছে এ বর্বোরোচিত হামলার বিচার চাই।

এবিষয়ে হাতিয়া থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আবুল খায়ের জানান, জিন্নুরের উপর হামলা হয়েছে এমন কিছু আমি শুনেনি। বরং তার বিরুদ্ধে থানায় মামলা আছে। আমরা তাকে খোঁজতেছি। তাকে ফেলে গ্রেফতার করবো।