Sharing is caring!

এনকে বার্তা ডেস্ক::

প্রথমবার বিসিএস (কাস্টমস অ্যান্ড এক্সাইজ) ক্যাডারের এক কর্মকর্তা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তিনি রংপুর কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেটে ডেপুটি কমিশনার হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। বৃহস্পতিবার (২৮ মে) এ কর্মকর্তার করোনা সনাক্ত হয়।

## কাস্টমস-ভ্যাটে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ২২

## একজন রাজস্ব কর্মকর্তার অবস্থা আশঙ্কাজনক

বর্তমানে তিনি ঢাকার বাসায় আইসোলেশনে রয়েছেন। রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তিনি আক্রান্ত হয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। রংপুর ভ্যাট কমিশনারেট ও বিসিএস (কাস্টমস অ্যান্ড ভ্যাট) অ্যাসোসিয়েশন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে এ নিয়ে কাস্টমস ও ভ্যাট বিভাগে করোনা আক্রান্ত রাজস্ব যোদ্ধার সংখ্যা দাঁড়াল ২২।

আক্রান্ত কর্মকর্তা শেয়ার বিজকে বলেন, ‘গত ৭-৮ দিন ধরে জ্বরসহ বেশ কিছু উপসর্গ ছিল। ২৭ মে নমুনা দেওয়া হয়। বৃহস্পতিবার (২৮ মে) নমুনা পজেটিভ আসে। বর্তমানে বাসায় আইসোলেশনে রয়েছি। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ওষধ খাচ্ছি। পরিবারের কারো এখনো করোনার কোন উপসর্গ দেখা দেয়নি। ধারণা করছি, দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে আক্রান্ত হতে পারি।’

রংপুর ভ্যাট কমিশনার শওকত আলী সাদী শেয়ার বিজকে বলেন, ‘আক্রান্ত কর্মকর্তা ও তার পরিবারের সাথে যোগাযোগ রেখে চিকিৎসার খোঁজ রাখা হচ্ছে। আর তার সংস্পর্শে যারা এসেছেন তাদের আইসোলেশনে যেতে বলা হয়েছে। আরো সাবধানতা অবলম্বন করে কাজ করতে কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।’

আক্রান্ত কর্মকর্তার সহকর্মীরা জানান, বিসিএস ৩০তম ব্যাচের এ চৌকস কর্মকর্তা রংপুর ভ্যাট কমিশনারেটে কর্মরত। মেধাবী ও সদালাপী এ কর্মকর্তা রাজস্ব আহরণের মতো রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। রাজস্ব যোদ্ধাদের সুচিকিৎসার ব্যবস্থা ও সুরক্ষা সামগ্রীর ব্যবস্থা করতে এনবিআরের প্রতি অনুরোধ জানান তারা।

কাস্টমস ও ভ্যাট বিভাগ সূত্র জানায়, রংপুর ভ্যাটের এ কর্মকর্তাসহ কাস্টমস ও ভ্যাট বিভাগে আক্রান্ত কর্মকর্তার সংখ্যার দাঁড়ালো ২২। এর মধ্যে কাস্টমস ও ভ্যাট ক্যাডারের একজন। আক্রান্তদের মধ্যে চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউসের ১৩ জন। ১৩ জনের মধ্যে ছয়জন রাজস্ব কর্মকর্তা। ছয়জন সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা ও একজন কম্পিউটার অপারেটর। একজন রাজস্ব কর্মকর্তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। তিনি আনোয়ার খান মর্ডান হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

অন্যান্য আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছে-আইসিডি কমলাপুর কাস্টম হাউসের একজন রাজস্ব কর্মকর্তা ও একজন সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা। ভ্যাট পশ্চিম কমিশনারেটের একজন সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা। ভ্যাট উত্তর কমিশনারেটের একজন সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা। ঢাকা কাস্টম হাউসের তিনজন সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা। চট্টগ্রামের ভ্যাট কমিশনারেটের একজন সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা।

বিসিএস (কাস্টমস অ্যান্ড ভ্যাট) অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব এবং মূসক, নিরীক্ষা গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সৈয়দ মুসফিকুর রহমান শেয়ার বিজকে বলেন, সরকারের নির্দেশনা পালন করে রাজস্ব আহরণ করতে আমরা বদ্ধপরিকর। রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে কর্মকর্তারা আক্রান্ত হচ্ছেন। আমরা কর্মকর্তাদের পাশে রয়েছি। চিকিৎসার ব্যবস্থা করা ও তাদের পরিবারকে সাহস দিতে আমরা কাজ করছি।

এনবিআর সূত্র জানায়, লকডাউনের মধ্যে রিটার্ন দাখিলে ১২-১৫ এপ্রিল ভ্যাট সার্কেল খোলা ছিল। দেশের ২৫২টি ভ্যাট সার্কেলে জমা নেওয়া হয় রিটার্ন। পরে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের আদেশ অনুযায়ী সীমিত পরিসরে ভ্যাট অফিস খোলা ছিল। ঈদের আগেও রাজস্ব আহরণ ও রিটার্ন জমা এবং ভ্যাট সেবা প্রদানে সীমিত পরিসরে খোলা ছিল ভ্যাট অফিস। কর্মকর্তারা অনেকটা সুরক্ষা সামগ্রী ছাড়াই সেবা দিয়েছেন। ৩১ মে থেকে আগের মতো স্বাভাবিকভাবে খোলা থাকবে ভ্যাট অফিস।

Sharing is caring!