Sharing is caring!

স্টাফ রিপোর্টারঃ

 

নোয়াখালীতে প্রকাশ্য নেশাদ্রব্য ইয়াবা (বাবা) ট্যাবলেট বিক্রয়ের সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোনাপুর পুলিশ ফাঁড়ির একদল চৌকষ পুলিশ সদস্যদের হাতে ১০ পিচ ইয়াবা সহ গ্রেফতার হন সুবর্ণচর উপজেলার ৫ নং চরজুবিলী ইউনিয়নের উত্তর কচ্চপিয়া গ্রামের ছোট মেস্ত্রী বাড়ীর বদিউর রহমানের পুত্র চর মহিউদ্দিন (সাংগঠনিক) ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক ও জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি হাসান (২৮)। পরে মাদকদ্রব্য আইনে তাকে গ্রেফতারের দেখিয়ে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়।

 

এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে নোয়াখালী সুধারাম মডেল থানায় ২০১৮ সালের মাদকদ্রব্য আইনে মামলা করেন। মামলা নং ৫৭/২৬-৫-২১।

ঘটনাটি ঘটে ২৬ মে (বুধবার) নোয়াখালী সদর উপজেলার মাইজদী দত্তেরহাটের সার্কিট হাউজ সড়কে। পরে তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করে সুধারাম থানা পুলিশ।

মামলার এজাহারে জানাযায়, ২৬ মে নোয়াখালী পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডস্থ মাইজদীর গোপাই এলাকার দত্তেরহাট মোড় সার্কিট হাউজ রোড়ে হাসান ইয়াবা বিক্রয় করতে যায়। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোনাপুর পুলিশ ফাঁড়ির এসআই ওমর ফারুকের নেতৃত্বে কয়েকজন পুলিশ সদস্য ঘটনাস্থলে গিয়ে ১০ পিচ ইয়াবা সহ তাকে হাতেনাতে গ্রেফতার করে। পরে সুধারাম মডেল থানায় নিয়ে যাওয়া হয় তাকে এসময় হাসান ইয়াবা বিক্রির সাথে জড়িত বলে নিজ মুখে স্বিকার উক্তি দেন বলে মামলার এজাহারে জানাযায়।

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উত্তর কচ্চপিয়া গ্রামের বাসিন্ধারা বলেন, হাসান ছাত্রলীগ কর্মি হবার পর থেকে মাদক, চুরি ডাকাতিসহ নানা অসামাজিক কার্যকলাপের সাথে জড়িত। সে ছাত্রলীগ নেতা হওয়ায় তার বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুলেনা। তার বিরুদ্বে অপহরণসহ একাধিক মামলা আছে বলেও দাবী করেন এলাকাবাসী।

 

সুবর্ণচর উপজেলা ছাত্রলীগ, যুবলীগের একাধিক নেতা বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামি লীগের অংঙ্গসংগঠনের কোন নেতা কর্মি মাদকের সাথে জড়িত থাকলে তাকে সংগঠন থেকে বের করে দেয়া হবে। কোন মাদক কারবারি দলে ঠাঁই পাবেনা।

 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক নেতা জানান হাসানের মত এরকম কিছু সুবিধাবাদী নেতার কারনে আজ সংগঠনের বদনাম হচ্ছে এসব কিছু নেতা অন্যদল উড়ে এসেজুড়ে বসে প্রকৃত আওয়ামি লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ নেতা কর্মিদের সম্মানহানি করছে। ত্যাগি নেতারা বঞ্চিত হচ্ছে কিছু অসাধু লোক দলে প্রবেশ করে দলটাকে চুষে খেয়ে পেলছে।

 

এছাড়া হাসানের বিরুদ্ধে চরজব্বার থানায় হোন্ডা চুরির সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে আরো একটি মামলা রয়েছে মামলা নং ১২/২৯-০৪-২১।

সোনাপুর পুলিশ ফাঁড়ির এসআই ওমর ফারুক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মাদক সহ হাসানকে আটক করা হয়, এসময় সে নিজেকে ছাত্রলীগ নেতা হিসেবে পরিচয় দিয়ে প্রভাব খাটানোর চেষ্টা করেন পরে আমরা তাকে থানায় নিয়ে এসে জেল হাজতে প্রেরণ করি।

Sharing is caring!