Sharing is caring!

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

 

 

বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো সংঘাতকালীন যৌন-সহিংসতা নির্মূলে আন্তর্জাতিক দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে শনিবার ‘‘মহামারিকালে যৌন সহিংসতার শিকার ভুক্তভোগীদের পাশে দাঁড়ানো‘ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে এক ভার্চুয়াল সেমিনার আয়োজিত হয়।

 

 

কোভিড ১৯ মহামারী সহ নানা দূর্যোগে সংঘাতকালীন যৌন-সহিংসতার শিকার নারীদের অধিকার এবং প্রয়োজনগুলোকে একীভূত করার কৌশল অনুসন্ধানে কমিউনিটি, স্থানীয় এবং জাতীয় অ্যাক্টিভিস্ট এবং নীতি-নির্ধারকদের মধ্যে আলোচনার আজ ১৯ জুন, ২০২১, শনিবার লক্ষ্যে পার্টিসিপেটরি রিসার্চ অ্যাকশন নেটওয়ার্ক—প্রান এই ভার্চুয়াল সেমিনার আয়োজন করে। সেমিনারে মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন প্রানের যোগাযোগ কর্মকর্তা উম্মে সালমা, সেমিনারটি সঞ্চালন করেন প্রানের প্রধান নির্বাহী নুরুল আলম মাসুদ।

 

 

সেমিনারে বক্তরা বলেন, রাজনৈতিক, ধর্মীয় যে কোনো ধরণের সংঘাত হোক- ইতিহাস বলে সংঘাতের প্রধান প্রভাব পড়ে নারী এবং শিশুদের উপর। আমাদের বর্তমান সমাজে নারীকে নানাভাবে অধঃস্তন করে রাখার এবং দেখার চর্চা রয়েছে। যে কোনো রকমের যুদ্ধ, সংঘাত এই বিদ্বেষী মানসিকতাকে এমন পাশবিক পর্যায়ে নিয়ে যায় যার বিকৃত রূপ বেরিয়ে আসে নারী শিশুর উপর যৌন সহিংসতা হিসেবে। রাজনৈতিক, সামরিক কিংবা অর্থনৈতিক- যে কোনো উদ্দেশ্যে সীমানা, অঞ্চল কিংবা সম্পদের নিয়ন্ত্রন নিতে সাধারণ নাগরিকের উপর যৌন সহিংসতার ইতিহাস অনেক পুরোনো। নারী এবুং শিশুরাই মূলত এ ধরণের সহিংসতার প্রাথমিক শিকার।

 

 

বক্তারা আরও বলেন, শুধুমাত্র দ্বন্দ -সংঘাতেই নয়, যে কোনো সংকটেই সরকারি-বেসরকারি পরিষেবা গ্রহণ করতে গিয়েও নারীদের বঞ্চনার শিকার হবার ঘটনা প্রায়শই ঘটে। করোনা মহামারির কারণে লকডাউন, কোয়ারেন্টিন, চলাচলে বিধিনিষেধ, হাসপাতাল-ক্লিনিকগুলোর ব্যস্ততা ইত্যাদি নানা কারণে পরিসেবা গ্রহণের সুযোগ সীমিত হয়ে এসেছে। যার কারণে সহিংসতার ঘটনায় পরিষেবা গ্রহণের সুযোগও কমে এসেছে। সংঘাতকালীন সহিংসতার পাশাপাশি দেশজুড়ে নারীর প্রতি সহিংসতার নানা দিক আলোচনায় উঠে আসে। বর্তমান পরিস্থিতিতে ক্রমবর্ধমান হারে বাড়তে থাকা পারিবারিক সহিংসতা, ধর্ষণ, গুম, অপহরণ, গণধর্ষণের মতো সহিংসতার সংখ্যা বাংলাদেশে সামগ্রিক সুরক্ষা ও দীর্ঘস্থায়ী শান্তি পরিস্থিতিকে চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি করেছে। করোনা মহামারীসহ যে কোনো মানবিক সাড়াপ্রদানে যৌন-সহিংসতার শিকারদের প্রয়োজন অধিকারকে অগ্রাধিকার দেয়ার আহবান করেন সেমিনারের বক্তারা।

 

 

সেমিনারে আলোচনায় অংশ নেন সুশাসনের জন্য প্রচারাভিযানের সভাপতি আবদুল আউয়াল, গান্ধী আশ্রম ট্রাস্টের পরিচালক রাহা নবকুমার, নারী অধিকার জোটের সভাপ্রধান লায়লা পারভীন, চৌমুহনী এসএ কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আবুল বাসার।

 

এছাড়াও সেমিনারে নাগরিক সমাজের নেতৃবৃন্দ, গণমাধ্যমকর্মী, শিক্ষাবিদ এবং স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধিরা অংশ নেন।

Sharing is caring!