নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালী সদর উপজেলার ধর্মপুর ইউনিয়নের ভাটিরটেক গ্রামের ঝর্ণার বাড়িতে জায়গা নিয়ে বিরোধের জেরধরে বসত বাড়িতে হামলা ও শতাধিক গাছ কেটে ফেলার অভিযোগ উঠেছে একই এলাকার সালাউদ্দিন’র নামে। এঘটনায় সুধারাম মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

মামলা সূত্রে ও সরজমিনে গিয়ে জানাযায়, অভিযুক্ত সালাউদ্দিন পাশবর্তী এলাকার হইলেও সে উৎশৃঙ্খল ও লাঠিয়াল প্রকৃতির হওয়ায় দীর্ঘদিন যাবত তাদের বাড়ির জায়গা নিয়া অযথা বিরোধ করে আসছে। এঘটনার পূর্বেও তাদেরকে বিভিন্ন ভাবে হয়রানি করে তাদেরকে জায়গা থেকে উচ্ছেদ করার চেষ্টা চালান। তারই জেরধরে গত ১০ জুন বেলা ১১টার দিকে পাশবর্তী এলাকার সামছল হক মাঝির ক্যাডার বাহিনী নিয়ে এসে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে তাদের বসত বাড়িতে হামলা চালায়। এসময় বাধা দিতে এলে ঝর্ণা বেগম (৪০), কামাল উদ্দিন (৪০), নজরুল ইসলাম (৩০), করিম (২৮) ও লিটন (২৪) নামের ৫জন আহত হন। আহতের মধ্যে ৪জন প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে বাড়ি চলে আসে এবং গুরত্বর আহত আবস্থায় ঝর্ণা বেগমকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।

জানতে চাইলে আহত কামাল উদ্দিন জানান, দীর্ঘ ৫০ বছর যাবত আমরা এই জায়গায় বসবাস করে আসতেছি তারা জাল কাগজ করে এখন আমাদেরকে উচ্ছেদ করার চেষ্ট করছে। এসময় হোসনেআরা নামের এক বৃদ্ধা জানান, এই জায়গা চর জাগার পর থেকে এখানে আমরা বসবাস করে আসছি এখন তারা আমাদের উপর অত্যাচার চালাচ্ছে। তারা এসে আমার ছেলে মেয়েকে মারধর করে আমাদের প্রায় ১শর উপরে গাছ কেটে ফেলে গেছে। এঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে স্থানীয় নুর ইসলাম জানান, স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোস্তফার ভাই সালাউদ্দিন সন্ত্রাসী বাহিনী ও দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে এসে এ অসহায় পরিবারের উপর হামলা চালায় এবং তাদের ১শ’র উপরে গাছ কেটে চলে যায়।

অভিযোগের বিষয় জানতে চাইলে সালাউদ্দিন জানান, তারা বেআইনী ভাবে তার জায়গা ভোগ দখল করে আসছে। এর আগেও কয়েকবার বৈঠক হয়েছে তারা কোন সিদ্ধান্তই মানছেনা এবং আমার কাগজপত্র বৈধ থাকার পরও জায়গা ছাড়তে রাজিনা। তারা নিজেরা গাছ কেটে এখন আমাদের পাসানোর চেষ্টা চালাচ্ছে।

এ ঘটানার বিষয়ে জানার জন্য স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ছিদ্দিকুর রহমান সাবুকে ০১৭২৯১২৮০৩৬ এই নাম্বারে একাধিকবার কল দিলেও তিনি রিসিভ করেনি।

ঘটনার বিষয় জানতে চাইলে মুঠোফোনে সুধারাম থানার এএসআই আরিফ জানান, ঘটনাটি তদন্ত সাপেক্ষে যাবতীয় ব্যাবস্থা নেয়া হবে।