Sharing is caring!

২০২০ সালে প্রথমবারের মতো পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএল) ফাইনালে উঠেও কাঙ্খিত সাফল্য পায়নি লাহোর কালান্দার্স। করাচি কিংসের কাছে ৫ উইকেটে হেরে হতাশ হতে হয়েছে। দুই বছর পর সেই হতাশা লাঘব করেছে লাহোর কালান্দার্স।
মোহাম্মদ হাফিজের অলরাউন্ড পারফরমেন্স (৪৬ বলে ৬৯ও ২/২৩) এবং ডেথ ওভারে অধিনায়ক শাহীন শাহ’র ভয়ংকর এক স্পেলে ( ২-০-১২-৩)মুলতান সুলতানসকে হারিয়ে পিএসএল-এ প্রথমবারের মতো ট্রফি জিতেছে লাহোর কালান্দার্স।
রাউন্ড রবীন লিগে পয়েন্ট তালিকায় সেরা দুটি দলই ট্রফি নির্ধারণী ম্যাচে খেলেছে। লাহোর-মুলতানের রবীন লিগে হেড টু-হেড এ ১-১ এ ছিল সমতা। প্রথম দেখায় মুলতান সুলতানস জিতেছে ৫ উইকেটে, ফিরতি ম্যাচে ৫২ রানে জিতে বদলা নিয়েছে লাহোর। শ্রেষ্ঠত্ব নির্ধারণী মঞ্চে ব্যবধান গড়ে দিয়েছেন লাহোর কালান্দার্সের দুই অলরাউন্ডার মোহাম্মদ হাফিজ (৬৯ ও ২/২৩), ডেভিড ভিসে (৮ বলে ২৮ ও ১/১৬) এবং শাহীন শাহ আফ্রিদি (৩/৩০)।
লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ফাইনালে টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে আসিফ আফ্রিদির বোলিংয়ে (৪-০-১৯-৩) লাহোর কালান্দার্স বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে। এক পর্যায়ে স্কোর ছিল ২৫/৩, সেখান থেকে ৪র্থ উইকেট জুটিতে ৫৪ ও ৬ষ্ঠ জুটিতে ৫৮ রানে লাহোর কালান্দার্স স্কোর টেনে নিয়েছে ১৮০/৫এ।
ডেভিস ভিসে এবং হ্যারি ব্রুকের ব্যাটিং ঝড়ে লাহোর কালান্দার্স শেষ ১২ বলে ৪০ রান যোগ করেছে। হ্যারি ব্রুক ২২ বলে ২ চার, ৩ ছক্কায় ৪১, ডেভিড ভিসে ৮ বলে ১ চার, ৩ ছক্কায় করেছেন ২৮। বুড়ো হাড়ের ভেল্কি দেখিয়েছেন হাফিজ (৪৬ বলে ৯ চার, ১ ছক্কায় ৬৯)।
১৮১ রানের টার্গেটে জবাব দিতে এসে প্রথম উইকেট জুটিতে ৩৬ এবং ৬ষ্ঠ উইকেট জুটিতে ৪১ রান ছাড়া অন্য কোনো জুটি আশান্বিত করতে পারেনি।জামান খান (৪-০-২৬-২), হাফিজ (৪-০-২৩-২) মুলতান সুলতানসের কোমর দিয়েছে ভেঙ্গে। ইনিংসের শেষ দিকে টিম ডেভিড ১৭ বলে ২৭ রান ও খুলদিল শাহ ২৩ বলে ৩২ রান করলে ব্যবধান কমেছে। ১৭তম ওভারে দুটি ইয়র্কার ডেলিভারিতে ডেভিড উইলি, রুম্মান রাইসকে বোল্ড আউট করে ট্রফি নিশ্চিত করেছে লাহোর কালান্দার্স।
লাহোর কালান্দার্সের ফখর জামান পিএসএল-এ সর্বোচ্চ ৫৮৮ (৪৫.২৩) রান করেছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী মুলতান সুলতানসের মোহাম্মদ রিজওয়ান করেছেন ৫৪৬ রান (গড় ৬৮.২৫)। লাহোর কালান্দার্স অধিনায়ক শাহীন শাহ আফ্রিদি ১৩ ম্যাচে সর্বাধিক ২০ উইকেট (গড় ১৯.৭০) পেয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন ইসলামিক ইউনাইটেডের সাদাব খান পেয়েছেন ১৯ উইকেট।
লাহোর কালান্দার্স : ১৮০/৫ (২০.০ ওভারে)
মুলতান সুলতানস : ১৩৯/১০ (১৯.৩ ওভারে)
ফল : লাহোর কালান্দার্স ৪২ রানে জয়ী।
ম্যান অব দ্য ফাইনাল : মোহাম্মদ হাফিজ (লাহোর কালান্দার্স)।

Sharing is caring!