Sharing is caring!

পাকিস্তানে ক্রমবর্ধমান রাজনৈতিক সংকট নিয়ে জাতির উদ্দেশে ভাষণের ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। সুপ্রিম কোর্টে ইমরান খানের বিরুদ্ধে জাতীয় পরিষদে অনাস্থা প্রস্তাব খারিজের আদেশ এবং পার্লামেন্টে ভেঙে দেওয়ার সিদ্ধান্ত বাতিলের পর টুইট বার্তায় তিনি দেশের জন্য শেষ বল পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন।
বৃহস্পতিবার (৭ এপ্রিল) রাতে ইমরান খান টুইট বার্তা লিখেন, ‘আমি মন্ত্রিসভার বৈঠক ডেকেছি। সেই সঙ্গে সংসদীয় দলেরও বৈঠক ডেকেছি। আজ শুক্রবার (৮ এপ্রিল) সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেব। আমার বার্তা হলো, আমি সবসময়ই পাকিস্তানের হয়ে শেষ বল পর্যন্ত লড়াই করে যাব।’
বৃহস্পতিবার সর্বোচ্চ আদালত প্রেসিডেন্ট ড. আরিফ আলভির পার্লামেন্ট ভেঙে দেওয়ার সিদ্ধান্তকে বেআইনি এবং ইমরান খানকে প্রধানমন্ত্রী পদে এবং মন্ত্রিসভাকে পুনর্বহালের রায় দেন। আদেশে পাকিস্তানের মন্ত্রিসভাকে পুনর্বহাল এবং শনিবার (৯ এপ্রিল) পার্লামেন্টে ইমরান খানের বিরুদ্ধে অনাস্থা ভোট আয়োজনের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধান বিচারপতি।
পাঁচ দিন শুনানির পর প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ সর্বসম্মতিক্রমে এই রায় দিয়েছেন। রায়ে পাকিস্তানের প্রধান বিচারপতি উমর আতা বন্দিয়াল বলেন, ‘জাতীয় স্বার্থ এবং বাস্তব সম্ভাবনা দেখেই আদালত এগিয়ে এসেছেন। পার্লামেন্ট ভেঙে দিতে প্রেসিডেন্টকে পরামর্শ দেওয়ার অধিকার নেই প্রধানমন্ত্রীর। এই সিদ্ধান্ত বাতিল করা হয়েছে।’
পাকিস্তানের সর্বোচ্চ আদালতের রায় ঘোষণার আগে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেন, ‘শীর্ষ আদালতের যে কোনো সিদ্ধান্ত মেনে নিতে প্রস্তুত আছি। আমরা সুপ্রিম কোর্টের যে কোনো সিদ্ধান্ত মেনে নেব। পিটিআই নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত এবং আমরা কোনো বিদেশি ষড়যন্ত্র সফল হতে দেব না।’
এদিকে, সর্বোচ্চ আদালতের দেওয়া রায়কে ঐতিহাসিক আখ্যা দিয়েছেন বিরোধী দলগুলো। আর সরকার দলের প্রতিনিধিরা আদালতের এমন আদেশে অসন্তোষ জানিয়েছে। এই রায়কে দুর্ভাগ্যজনক অ্যাখা দিয়ে দেশকে আরও রাজনৈতিক অস্থিরতার দিকে ঠেলে দেবে বলে মন্তব্য করেছেন ইমরান খানের সমর্থকরা।

Sharing is caring!