Sharing is caring!

চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্রুপ থেকে বিদায় নিয়ে ইউরোপা লিগে খেলতে হয়েছিল বার্সেলোনাকে। গত কয়েক সপ্তাহের পারফরম্যান্স দিয়ে ইউরোপিয়ান দ্বিতীয় সারির প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হওয়ার স্বপ্ন দেখছিল তারা। কিন্তু কোয়ার্টার ফাইনালেই তা ভেঙে চুরমার।
বৃহস্পতিবার ন্যু ক্যাম্পে দ্বিতীয় লেগে ২-৩ গোলে তারা হেরেছে আইন্ত্রাখট ফ্রাঙ্কফুর্টের কাছে।
দুই লেগে কাতালানদের হার ৪-৩ গোলে। জার্মানরা সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে, যেখানে প্রতিপক্ষ ওয়েস্ট হ্যাম ইউনাইটেড।
ন্যু ক্যাম্প বার্সার মাঠ হলেও ফ্রাঙ্কফুর্টকে সমর্থন দেওয়ার লোক কম ছিল না। তাদের সমর্থকদের বন্যা বয়ে গিয়েছিল স্পেনের ওই স্টেডিয়ামে। তাতে যেন গর্জে ওঠে জার্মানরা।
দারুণ শুরু করে ফ্রাঙ্কফুর্ট। বার্সার এরিক গার্সিয়া তাদের বক্সের মধ্যে জেস্পার লিন্ডস্ট্রমকে ফেলে দিলে ঠাণ্ডা মাথায় পেনাল্টি থেকে মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগেনকে পরাস্ত করেন ফিলিপ কস্টিচ। ৩ মিনিটে এগিয়ে যায় সফরকারীরা।
জাভি হার্নান্দেজের দল শুরুতেই গোল হজম করলেও প্রতিপক্ষকে চাপে রাখতে উঠেপড়ে লাগে। উসমান দেম্বেলের বানানো বলে পিয়েরে এমেরিক অবেমেয়াংয়ের হেড যায় ক্রসবারের উপর দিয়ে। এবং রোনাল্ড আরাউজোর ভলি সরাসরি চলে যায় ফ্রাঙ্কফুর্ট গোলকিপার কেভিন ট্র্যাপের হাতে।
স্বাগতিকদের চাপ সত্ত্বেও ফ্রাঙ্কফুর্ট তাদের লিড দ্বিগুণ করে। এবার রাফায়েল বোরের বজ্রসম শট টের স্টেগেনকে ফাঁকি দিয়ে বার্সার জালে জড়ায়।
২-০ গোলে পিছিয়ে থেকে বার্সা দ্বিতীয়ার্ধে খেলতে নেমে গোলের জন্য হন্যে হয়ে ওঠে। অবেমেয়াংয়ের শট পয়েন্ট ব্ল্যাঙ্ক থেকে ট্র্যাপ রুখে দেন ৪৮তম মিনিটে। অন্যদিকে টের স্টেগেন লিন্ডস্ট্রমের একটি জোরালো শট ঠেকান।
এক ঘণ্টা পার হলে অবেমেয়াংয়ের জায়গায় অ্যাডামা ট্রাওরেকে ও সার্জিনো দেস্তকে ওস্কার মিনগুয়েজাকে মাঠে নামান জাভি। কিন্তু স্কোর পাল্টাতে পারেনি বার্সা। বরং ৬৭ মিনিটে নিচু ড্রাইভে নিজের দ্বিতীয় ও দলের তৃতীয় গোল করেন কস্টিচ।
দ্বিতীয়ার্ধের ইনজুরি টাইমে সার্জিও বুশকেটস ও মেম্ফিস ডিপে বার্সার হয়ে গোল করলেও তা হার এড়াতে যথেষ্ট ছিল না।
দিনের আরেক ম্যাচে লিওঁকে হারিয়ে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে ওয়েস্ট হ্যাম। ২৮ এপ্রিল হবে প্রথম লেগ ও দ্বিতীয়টি ৫ মে।

Sharing is caring!