নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ
নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলায় ফুটবল খেলার জের ধরে মো. সাইমুন (১৩) নামের এক মাদ্রাসা ছাত্রকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়েছে। এসময় তার বড় ভাই শিমুল (১৬) কে জখম করা হয়েছে। 
মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে সোনাইমুড়ী বজরা হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নিহত মো. সাইমুন সোনাইমুড়ী পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ড আলোকপাড়া গ্রামের শামসুদ্দিনের ছেলে। সে স্থানীয় আলিয়া মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণির ছাত্র।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার বিকালে স্থানীয় মাঠে আলোকপাড়া গ্রামের সাইমুনদের সিদ্দিক উল্যাহ হাজী বাড়ীর সাথে আশরাফ আলী বেপারী বাড়ীর একটি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। খেলা চলাকালে একটি গোল হওয়াকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষের মধ্যে বাকবির্তকের ঘটনা ঘটে। এর জের ধরে সাইমুনদের উপর ক্ষিপ্ত হয় প্রতিপক্ষের মীর হোসেনসহ কয়েকজন। সন্ধ্যায় মাগরীবের নামাজ পড়ে সাইমুন ও তার ভাই শিমুল বাজারে যাওয়ার পথে তাদের গতিরোধ করে একই এলাকার এছাক মিয়ার ছেলে মীর হোসেনসহ ৮-১০জন। এসময় সাইমুন ও শিমুলের সাথে তাদের হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এর একপর্যায়ের মীর হোসেন একটি ধারালো ছুরি দিয়ে সাইমুনের পেটে আঘাত করে এবং তাদের দুই ভাইকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে সোনাইমুড়ী বজরা হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক সাইমুনকে মৃত ঘোষণা করেন। আহত শিমুলকে আশংকাজনক অবস্থায় নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
সোনাইমুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুস সামাদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, অভিযুক্ত মীর হোসেনসহ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে একটি হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে।