Sharing is caring!

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

 

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা বলেছেন, তার অনুসারী গ্রেপ্তারকৃত যুবলীগ নেতা মিকনকে ক্রসপায়ারে দেওয়ার চক্রান্ত করেছে প্রশাসন। এ ধরনের ঘটনার পরিণতি হবে অত্যন্ত ভয়াবহ। এ ধরনের ঘটনা ঘটলে কিভাবে জবাব দিতে হয় আমি জানি। হত্যার বদলে হত্যা, এটা ছেড়ে দেওয়া হবেনা। আজকে শামীমের মত কুলা..আমার গায়ে হাত দেয়। ওসি কুলা..রনি আজকে আমার গায়ে হাত দেয়, আমাকে গালি গালাজ করে। আজকে আমার ছেলেদেরকে ক্রসপায়ারে দেবে। রক্তের হলি খেলা কোম্পানীগঞ্জে চলবে। এটা কোন অবস্থায় ছেড়ে দেয়া হবেনা। আমার সন্তানের গায়ে হাত দেয়া হয়েছে, কারো সন্তান রেহাই পাবেনা। যারা এ ঘটনার সাথে জড়িত। এটা আমি স্পষ্ট ভাষায় বলে দিচ্ছি।

 

মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) দুপুর ২টায় তার অনুসারী স্বপন মাহমুদের ফেইসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে লাইভে এসে তিনি এসব কথা বলেন।

 

পুলিশ তুমি যতই করো তোমার বেতন ৪১২। আগে বলছে, আগে আগে স্লোগান দিছে। অড়া শেষ, শেষ আছে। আমি আজকে আমার ভাষা হারিয়ে ফেলেছি। আজকে আমি ভালো ভাষায় ব্যবহার করতে পারছিনা। এ জন্য আপনাদের কাছে আন্তরিক ভাবে লজ্জিত। আজকে যে তান্ডব চলছে এখানে বিশ্বাস করতে পারেবেন না। ওবায়দুল কাদের তার স্ত্রীকে বাঁচানোর জন্য ওই সচিব দুর্নীতি বাজ বেলায়েতকে দিয়ে নোয়াখালীর প্রশাসনকে দিয়ে আমার পরিবারকে হত্যা করার জন্য পাঁয়তারা করছে। কেউ কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেনা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে বলেছি উনিও কোন ব্যবস্থা নেন নাই। এটা চলতে দেয়া যায় না। আল্লার গজব পড়বে। আজকে যে কোন জায়গায় বসে সিন্ধান্ত নিয়ে ভবিষ্যত কর্মপন্থা নিব ইনশআল্লাহ। কোন অবস্থায় সে পুলিশ হোক, এমপি হোক, মন্ত্রীর স্ত্রী হোক আর সচিব হোক কাউকে ছাড় দেওয়া হবেনা।

 

উল্লেখ্য, গত (১৫ এপ্রিল) কাদের মির্জার ছেলেকে উপজেলা আ.লীগ কমিটির অনুসারীরা কোম্পানীগঞ্জ থানার সামনে মারধর করে লাঞ্ছিত করে। পরে ওই ঘটনার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে ইতোমধ্যে ভাইরাল হয়।

Sharing is caring!