Sharing is caring!

চাটখিল (নোয়াখালী) প্রতিনিধি:

 

 

নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার হস্তক্ষেপে বাল্যবিবাহ থেকে রক্ষা পেয়েছে ১৫ বছরের এক এসএসসি পরীক্ষার্থী।

 

শুক্রবার (১৮ জুন) বিকেলে চাটখিল উপজেলার শাহাপুর ইউনিয়েন ৪নং ওয়ার্ডের প্রসাদপুর গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। শনিবার রাত ১১টা ১৫মিনিটের দিকে চাটখিল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবু সালেহ মোহাম্মদ মোসা বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

 

তিনি আরও জানান, শুক্রবার সকালের দিকে জানতে পারি উপজেলার শাহাপুর ইউনিয়নের প্রসাদপুর গ্রামের মহিব উল্যাহ তার নাবালিকা মেয়ে মিনহাজ সুলতানাকে বিয়ে দিচ্ছেন। মেয়েটি স্থানীয় সোমপাড়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এই বছর এসএসসি পরীক্ষার্থী। গোপনে ওই ছাত্রীর সঙ্গে তার দুলাভাই সৌরভের (৪০) বিয়ের আয়োজন করে পরিবার। পরে কনে নিজেই আমাকে বাল্যবিবাহের খবরটি জানায়। খবর পেয়ে বিয়েটি বন্ধ করার জন্য সাহাপুর ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের মেম্বারসহ চাটখিল থানার পুলিশকে ঘটনাস্থলে পাঠাই। এ সময় তারা বাল্য বিবাহ বন্ধ করে মেয়ের বাবাকে চাটখিল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কার্যালয়ে নিয়ে আসে। পরবর্তীতে সেখানে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে মেয়ের বাবাকে ৫ হাজার টাকা অর্থদন্ড করা হয় এবং বিবাহ বন্ধের মুচলেকা আদায় করা হয়। ১৮ বছরের আগে মেয়েকে বিয়ে দিবে না এবং মেয়ের ইচ্ছের বিরুদ্ধে বিয়ে দেয়া যাবে না মর্মে পরিবারের সদস্যরা লিখিত ভাবে অঙ্গীকার নামা প্রদান করে।

 

চাটখিল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবু সালেহ মোহাম্মদ মোসা বলেন, বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে উপজেলা প্রশাসন সব সময় মাঠ পর্যায়ে খোঁজ খবর রাখছে। বাল্যবিবাহ বন্ধে সমাজের সকল শ্রেণির মানুষ দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখা উচিত।

Sharing is caring!