Sharing is caring!

নোয়াখালী প্রতিবেদক:

 

ওমানের মাসকেট শহরে নিজ কর্মস্থলে দূর্ঘটনার শিকার হয়ে রফিকুল ইসলাম ইমন (২৬) নামের এক বাংলাদেশি নিহত হয়েছে। ইমনের মৃত্যুতে তার দেশের বাড়ি নোয়াখালীর কবিরহাটে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। নিহত ইমন কবিরহাট পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ড ঘোষবাগ এলাকার কাজী বাড়ির আবুল কালামের ছেলে।

 

শুক্রবার রাত ১১টায় ইমনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে তার প্রতিবেশী শরিফুল ইসলাম দিদার জানান, তিন ভাই ও এক বোনের মধ্যে ইমন ছিলেন তৃতীয়। জীবিকার তাগিদে তার বড় ভাই নজরুল ইসলাম সুমনের সহযোগিতায় ২০১৫সালে ওমানে যান ইমন। পরে ওমানের মাসকেট শহরে একটি ভবন তৈরির কোম্পানীতে সুপারভাইজার হিসেবে কাজ নেন। ওমান যাওয়ার পর থেকে আর দেশে আসেননি তিনি। বাংলাদেশ সময় শুক্রবার সকালে বাড়িতে তার মায়ের সাথে মোবাইলে কথা শেষ করে নিজের কর্মস্থলে যান ইমন। দুপুর ১২টার দিকে বড় একটি ক্যারন মেশিনে উঠে বহুতল ভবনের কাজ দেখছিল ইমন। এসময় ভবনের ওপর থেকে লোহার একটি অংশ তার মাথায় পড়লে অচেতন হয়ে পড়েন ইমন। পরে কোম্পানীর লোকজন উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক ইমনকে মৃত ঘোষণা করেন। বর্তমানে ইমনের লাশ স্থানীয় একটি হাসপাতালের মর্গে রয়েছে।

 

এদিকে শুক্রবার সন্ধ্যায় ইমনের মৃত্যুর খবর তাঁর দেশের বাড়িতে পৌঁছলে স্বজনদের মধ্যে আহাজারি সৃষ্টি হয়। মা-বাবা, ভাই বোনসহ পরিবারের লোকজন কান্নায় ভেঙে পড়েন। ছেলেকে হারিয়ে কান্নায় মুচ্ছা যাচ্ছেন ইমনের মা। ইমনের লাশ দেশে আনতে বাংলাদেশ সরকারের সহযোগিতা কামনা করেছেন তাঁর পরিবারের সদস্যরা।

Sharing is caring!