Sharing is caring!

নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ

 

 

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার কুতুবপুর ইউনিয়নে সদ্য শেষ হওয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিজয়ী ও পরাজিত প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া এবং সঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে অন্তত ৬জন আহত হয়েছে। এসময় একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আগুন দেওয়ার ঘটনা ঘটে। অগ্নিকান্ডের ঘটনায় উভয় পক্ষ একে অন্যকে দায়ী করছেন।

 

শুক্রবার সন্ধ্যায় পূর্ব আবদুল্যাহপুর গ্রামে এ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। আহতরা হচ্ছেন, আজাদ (৪০), জামাল উদ্দিন (৪২), আব্দুল্যাহ আল মামুন রাব্বী (১৬) ও নিজাম উদ্দিন (৩৮)সহ ৬জন। আহতদের মধ্যে কয়েকজনকে নোয়াখালী জেনারেল হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

 

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের ন্যায় কুতুবপুরেও ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। গত ১১ নভেম্বর সন্ধ্যায় ভোট গণনা শেষে মেম্বার পদে ফুটবল প্রতীক নিয়ে নুরুল হুদা আলমগীর বেসরকারি ভাবে জয়ী হয়। তার প্রতিদ্ব›দ্বী প্রার্থী ছিল মোরগ প্রতীকের নূর মোহাম্মদ মানিক। ফলাফল ঘোষনার পর থেকে উভয় পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। এ ঘটনার জের ধরে শুক্রবার জুমার নামাজের পর পূর্ব আবদুল্যাহ পুর জামে মসজিদের সামনে পুনঃরায় উভয় পক্ষের লোকজনের মধ্যে বাকবির্তক, ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, ইট-পাটকেল নিক্ষেপ ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ৬জন আহত হয়।

 

নির্বাচিত ইউপি সদস্য (মেম্বার) নুরুল হুদা আলমগীর জানান, নামাজের পরপর ভোটের বিষয় নিয়ে মসজিদের সামনে তার লোকদের ওপর হামলা চালায় মানিকের লোকজন। এসময় তারা আজাদ নামের তার এক সমর্থককে আটক করে পিটিয়ে ও কুপিয়ে জখম করে। পরে হামলাকারীরা আলমগীর মেম্বারের বাড়িতে হামলা চালানোর চেষ্টা করে। এসময় তাদের বাঁধা দিতে আসলে মেম্বারের ভাই জামাল উদ্দিন, নিজাম উদ্দিন, ভাতিজা রাব্বীকে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে জখম করে।

 

তিনি আরও বলেন, নির্বাচনে পরাজিত হয়ে এবং আমাকে ফাঁসানোর জন্য মানিক নিজের দোকানে আগুন দিয়েছে। অগ্নিকান্ডের ঘটনার সাথে আমি বা আমার কোন লোকজন জড়িত না বলে দাবী করেন তিনি।

 

এদিকে পরাজিত প্রার্থী নূর মোহাম্মদ মানিক বলেন, শুক্রবার সন্ধ্যায় পরিকল্পিতভাবে আলমগীর মেম্বারের লোকজন আমার দোকানে আগুন দিয়েছে। এতে দোকানে থাকা মালামাল পুড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। নির্বাচনের আগে নতুন করে ওই দোকানে ৩লাখ টাকার মালামাল তুলেছিলেন বলেও জানান তিনি।

 

বেগমগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর জাহেদুল হক রনি জানান, হামলা, সংঘর্ষ ও অগ্নিকান্ডের ঘটনায় উভয় পক্ষ থানায় পাল্টাপাল্টি অভিযোগ দিয়েছে। এ বিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Sharing is caring!