Sharing is caring!

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

 

নোয়াখালীর জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক দৈনিক নোয়াখালী প্রতিদিনের সম্পাদক রফিকুল আনোয়ারের স্মরণে শোকসভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

 

বুধবার (২২ জুন) বিকেল সাড়ে ৪টায় উপজেলা হলরুমে প্রেসক্লাব কোম্পানীগঞ্জের উদ্যোগে এ শোকসভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

শোকসভায় বক্তারা বলেন, নোয়াখালী অঞ্চলে স্বাধীন সাংবাদিকতাকে এগিয়ে নিতে যারা ভূমিকা রেখেছেন রফিকুল আনোয়ার ছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম। তিনি একজন সাহসী কলম সৈনিক ছিলেন। বিশেষ করে নোয়াখালীকে গভীরভাবে ভালবাসতেন তিনি। পেশার মর্যাদা রক্ষা তার সাহসী ভূমিকা চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। নিজের মেধা দিয়ে অনেক লড়াই-সংগ্রাম করে সাংবাদিক হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন। তার ক্ষুরধার লেখনি নোয়াখালীতে আলোচনার জন্মদিত। তার লেখায় সমাজের কালো শক্তি সবসময়ই ক্ষুব্ধ হত। তিনি তাদের চোখ রাঙানীকে ভয় পেতেন না। তার মৃত্যুতে নোয়াখালীর সাংবাদিক সমাজ একজন অভিভাবক হারাল। তিনি দীর্ঘ ৩০ বছর সাংবাদিকতা পেশার সাথে জড়িত ছিলেন। স্বাধীনতার সপক্ষে তার অবস্থান ছিল আমৃত্যু। বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের প্রশ্নে কখনো আপস করননি। নোয়াখালীর অনেক বরেণ্য রাজনীতিকরা তাকে স্নেহ করতেন।

 

সংগঠনের সভাপতি হাসান ইমাম রাসেলের সভাপতিত্বে ও সাংবাদিক নেয়ামত উল্যাহ সাগরের সঞ্চালনায় শোকসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মেজবাউল আলম ভূঁইয়া। শোকসভায় বক্তব্য রাখেন, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. বেলাল হোসেন, সিরাজপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নাজিম উদ্দিন মিকন, নোয়াখালী প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জামাল উদ্দিন বিষাদ, দৈনিক যায়যায় দিনের নোয়াখালী স্টাফ রিপোর্টার আবু নাছের মঞ্জু, বাংলাদেশ প্রতিদিনের নোয়াখালী জেলা প্রতিনিধি আকবর হোসেন সোহাগ, প্রেসক্লাব কোম্পানীগঞ্জের সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন রনি, বসুরহাট ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির সেক্রেটারী নাজিম উদ্দিন নিজাম, মরহুমের বড় ছেলে আশরাফুল আনোয়ার প্রমূখ। পরে রফিকুল আনোয়ারের রুহের মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাত পরিচালনা করেন মুফতি হাফিজ উল্যাহ।

 

উল্লেখ্য, গত সোমবার (২০ জুন) রাত সাড়ে ১০টার দিকে ঢাকার নিজ বাসায় স্ট্রোক করে তার মৃত্যু হয়। গতকাল মঙ্গলবার বেলা ১১টা ১৫মিনিটের দিকে উপজেলার সিরাজপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের পূর্ব মোহাম্মদ নগর গ্রামের পারিবারিক কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হয়। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক কন্যা ও দুই ছেলেসহ বহু গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। সিনিয়র এই সংবাদকর্মী দৈনিক নোয়াখালী প্রতিদিনের প্রকাশক ও সম্পাদক হিসেবে সুনামের সঙ্গে কাজ করেছেন। তিনি নোয়াখালী বিভাগ চাই আন্দোলনসহ বহু সামাজিক সংগঠনের সাথে জড়িত ছিলেন।

Sharing is caring!