ন্যাশনাল ব্যাংকের পাল্টা অভিযোগ এক্সিমের মামলার পর

নিউজ ডেস্ক
নিউজ ডেস্ক
আপডেটঃ : বৃহস্পতিবার, ২৮ মে, ২০২০

এনকে বার্তা ডেস্ক::

এক্সিম ব্যাংকের কর্মকর্তাদের অস্ত্র ধরে হুমকি দেওয়ার অভিযোগ নাকচ করে উল্টো তাদের পরিচালকদের বিরুদ্ধে ঋণ নেওয়ার অভিযোগ করেছে ন্যাশনাল ব্যাংক।

ন্যাশনাল ব্যাংকের এক পরিচালক রন হক সিকদার ও তার ভাই দিপু হক সিকদারের বিরুদ্ধে মামলার খবর প্রকাশের পর বুধবার গণমাধ্যমে নিজেদের বক্তব্য পাঠায় ন্যাশনাল ব্যাংক।

ন্যাশনাল ব্যাংকের ডিএমডি এএসএম বুলবুল বলেন, ন্যাশনাল ব্যাংকের আইনি পরামর্শক হিসেবে জ্যেষ্ঠ আইনজীবী আব্দুল বাসেত মজুমদার এই বক্তব্য দিয়েছেন।

ন্যাশনাল ব্যাংক পরিচালনায় থাকা দুই সিকদারের বিরুদ্ধে গত ১৭ মে গুলশান থানায় মামলা করেন এক্সিম ব্যাংকের পরিচালক অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট কর্নেল সিরাজুল ইসলাম। এক্সিম ব্যাংকের শীর্ষ কর্মকর্তাকে হুমকি, মামলা ন্যাশনালের পরিচালকের বিরুদ্ধে

এতে দুই ভাইর বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে, তারা এক্সিম ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোহাম্মদ হায়দার আলী মিয়া এবং অতিরিক্ত এমডি মোহাম্মদ ফিরোজ হোসেনকে অপহরণ করে হত্যার হুমকি দিয়েছেন, গুলি ছুড়েছেন।

সিকদার গ্রুপের প্রস্তাবিত ঋণের বন্ধকী সম্পত্তির দাম কম হওয়ার কথা বলায় ক্ষুব্ধ হয়ে রন ও দিপু অস্ত্রের মুখে গত ৭ মে পূর্বাচল থেকে বনানীতে সিকদার গ্রুপের অফিসে হায়দার ও ফিরোজকে তুলে নিয়ে সাদা কাগজে সই নিয়ে তারপর ছেড়েছিলেন বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়।

অভিযোগ অস্বীকার করে ন্যাশনাল ব্যাংকের প্যাডে বাসেত মজুমদারের পাঠানো বক্তব্যে বলা হয়, রন হক এক্সিম ব্যাংক থেকে ৫০০ কোটি টাকা ‍ঋণ পেতে কোনো আবেদন করেননি। তিনি এক্সিম ব্যাংকের গুলশান এভিনিউ শাখায় যাননি, এক্সিম ব্যাংকের এমডি ও এএমডির সঙ্গেও দেখা করেননি।

“সেই ক্ষেত্রে ঋণ এবং এই সংক্রান্ত জামানত নিয়ে দর কষাকষির কোনো সুযোগ আসতে পারে না। অদ্য মামলার বাদী উল্লেক্ষিত ঘটনার সাক্ষী নয়, মামলার এক্সিম ব্যাংকের এমডি ও এএমডির সাথে আলোচনা না করে ব্যাংকের শুধু নির্বাহীদের সাথে কথা বলে ঘটনার ১২ দিন পর উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে মামলা দায়ের করেন, যাহা ন্যায়বিচারের পরিপন্থি এবং মামলাটি শুধু আমার মক্কেলকে সামাজিকভাবে হেয় করার জন্য দায়ের করা হয়।”

পাল্টা অভিযোগে বাসেত মজুমদার বলেন, “এক্সিম ব্যাংকের জনৈক পরিচালক ব্যবসা প্রসারের জন্য ন্যাশনাল ব্যাংক থেকে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন প্রকারের ঋণ সুবিধা গ্রহণ করে। জনৈক পরিচালক তার কন্যার নামেও ঋণ সুবিধা গ্রহণ করে। জনৈক পরিচালক বেনামে ঋণ সুবিধা গ্রহণের জন্য প্রস্তাব প্রেরণ করেন।

“গুলশান থানায় মামলা নম্বর ৩ এর বাদী নিজেও ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড থেকে ঋণ সুবিধা গ্রহণ করেছেন। এসব ঋণের উপযুক্ত জামানত ব্যতিরেকে ঋণ প্রাপ্ত হইয়া বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে জনৈক পরিচালক ও তার স্বার্থ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান বিপুল অংকের ঋণ সুবিধা আবেদনের নিমিত্তে এ বছরের ১৩ মে পাঁচ কোটি টাকার ঋণ সুবিধা গ্রহণ করেন।”

ন্যাশনাল ব্যাংকের আইনি পরামর্শক বলছেন, “ভুয়া ভিত্তিহীন মামলা দায়েরের জন্য আমি আমার মক্কেলের পক্ষ হইতে দৃঢ় প্রতিবাদ জানাই এবং আমার মক্কেলের দৃঢ় বিশ্বাস উপযুক্ত তদন্তের মাধ্যমে মামলার নিরপেক্ষ তদন্ত হইবে এবং প্রকৃত দোষী (বাদী এবং এক্সিম ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ) কে আইনের ও ন্যায় বিচারের সম্মুখীন হইতে হবে।”

১৯৯৯ সালে প্রতিষ্ঠিত বেসরকারি এক্সিম ব্যাংকের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম মজুমদার দেশের ব্যাংক মালিকদের সংগঠন বিএবিরও চেয়ারম্যান।


এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯