Sharing is caring!

ডেস্ক রিপোর্ট::

করোনাভাইরাস নমুনা পরীক্ষা, সনদ, প্লাজমা ডোনেশনসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে যেসব প্রতিষ্ঠান প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছে, তাদের বিরুদ্ধে সরকার কঠোর অবস্থানে রয়েছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আজ বুধবার রাজধানীর সংসদ ভবন এলাকায় নিজের সরকারি বাসভবনে সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন। এ সময় ১৪ দলের সমন্বয়ক ও মুখপাত্র হিসেবে আমির হোসেন আমুর নাম ঘোষণা করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

কাদের বলেন, ‘করোনা সংকট ঘিরে একশ্রেণির অসাধু চক্র প্রতারণার আশ্রয় নিচ্ছে, মানুষ ঠকাচ্ছে। সরকার এসব প্রতারণা ও অনিয়মের বিরুদ্ধে অত্যন্ত কঠোর অবস্থানে। এ ধরনের প্রতারণা মানুষের অসহায়ত্ব নিয়ে নির্মম বাণিজ্য ছাড়া কিছু নয়। অন্যদিকে, আমাদের কিছু মানুষ সংক্রমণ লুকিয়ে, তথ্য গোপন করে চলাফেরা করছে। শুধু তাই নয়, করোনা নেগেটিভ সনদ নিয়ে বিদেশে গিয়ে এয়ারপোর্টে পজিটিভ হিসেবে চিহ্নিত হচ্ছে। বিদেশে যাওয়ার এ তীব্র প্রতিযোগিতা এবং সত্য গোপন রাখায় বিদেশে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হতে পারে। লাখ লাখ প্রবাসীকে অবিশ্বাস আর অনিশ্চয়তার আঁধারে ঠেলে দিচ্ছে। দয়া করে কেউ এমন কাজ করবেন না।’

সংক্রমণ না লুকিয়ে লক্ষণ দেখা দিলে আইসোলেশনে থাকতে এবং চিকিৎসা নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে কাদের বলেন, ‘আপনার তথ্য গোপনের সঙ্গে দেশের ইমেজ, লাখ লাখ প্রবাসীর ভাগ্য এবং আপনার নিজের ভবিষ্যৎ ও অনিশ্চয়তা আবর্তিত হবে।’

কাদের বলেন, ‘সমাগম এড়িয়ে চলতে হবে নিজের ও পরিবারের স্বার্থে। পশুর হাট, বাস, লঞ্চ টার্মিনাল, রেলস্টেশন, ফেরিঘাট, শপিংমল, কাঁচাবাজারসহ প্রতিটি স্থানে পারস্পরিক দূরত্ব বজায় রেখে, মাস্ক পরে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে সুরক্ষা তৈরি করতে হবে। পরিবারের সঙ্গে ঈদ করার আনন্দযাত্রা যেন বিষাদযাত্রায় রূপ না নেয়, সে বিষয়ে সচেতন থাকতে হবে।’

‘ক্ষণিকের উদাসীনতা জীবনের চিরচেনা কোলাহল থেকে আমাদের নিঃশব্দে অচেনা জগতে নিয়ে যেতে পারে। তাই আসুন, সচেতনতার সর্বোচ্চ মাত্রায় নিজেদের সুরক্ষা করি। স্বাস্থ্যবিধি না মানলে কোনো প্রয়াসই কাজ দেবে না। লকডাউন কিংবা রেড জোন। তাই আসুন, মনের মাঝেই দৃঢ়তার নির্মাণ করি করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধে।’

করোনা সংক্রমণ রোধ ও আক্রান্তদের চিকিৎসায় সম্মুখ সারিতে থেকে যাঁরা লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন, তাঁদের অভিনন্দন জানিয়ে কাদের বলেন, ‘আপনাদের ত্যাগ, মনোবল এবং সংকটে সহমর্মিতার যে নজির স্থাপন করেছেন, তা জাতি শ্রদ্ধাবনত চিত্তে স্মরণ করবে। জাতির প্রয়োজনে আপনারাই প্রকৃত বীর।’ এ সময় মৃত্যু হওয়া সামনের সারির যোদ্ধাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন ওবায়দুল কাদের।

Sharing is caring!