Sharing is caring!

নিজেস্ব প্রতিবেদক::

নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনাভাইরাসের প্রার্দুভাব প্রতিরোধে ব্যক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রী (পিপিই) ও সার্জিক্যাল মাস্ক (ফেইস মাস্কসহ) আমদানিতে করছাড়ের পর এবার উৎপাদন, ব্যবসায়ী ও যোগানদার পর্যায়ে মূল্য সংযোজন কর (মূসক বা ভ্যাট) অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। বুধবার (৬ মে) জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) প্রথম সচিব (মূসক নীতি) কাজী ফরিদ উদ্দীন সই করা বিশেষ আদেশ জারি করা হয়েছে।

আদেশে বলা হয়, বর্তমানে করোনাভাইরাস এর প্রার্দুভাব প্রতিরোধে সরকার কর্তৃক নানা ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। এরই অংশ হিসেবে বৈশ্বিক এ মহামারি মোকাবেলায় অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের ২২ মার্চের প্রজ্ঞাপন এর মাধ্যমে আমদানি পর্যায়ে পিপিইসহ আনুষাঙ্গিক পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে সমুদয় শুল্ককর অব্যাহতি প্রদান করা হয়েছে।

আরো বলা হয়, করোনা রোগীদের চিকিৎসা প্রদানের জন্য চিকিৎসক, নার্সসহ সংশ্লিষ্ট সকলের মানসম্মত পিপিই ও সার্জিক্যাল মাস্ক পরিধান করতে হয়। তাছাড়া করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার কারণে আগামী দিনগুলোতে দেশে প্রচুর পরিমাণ পিপিই ও সার্জিক্যাল মাস্কের (ফেইস মাস্কসহ) প্রয়োজন হতে পারে, যা এ ধরনের দুযোর্গেকালীন পরিস্থিতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।

আদেশে বলা হয়, জনস্বার্থে এনবিআর মূসক আইন, ২০১২ এর ১২৬ ধারা উপধারা (৩) এ প্রদত্ত ক্ষমতাবলে, বৈশ্বিক মহামারির এ দুযোর্গকালীন সময়ে পিপিই ও সার্জিক্যাল মাস্ক পণ্যের ক্ষেত্রে উৎপাদন, ব্যবসায়ী ও যোগানদার পর‌্যায়ে প্রযোজ্য ভ্যাট আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত অব্যাহতি প্রদান করা হয়েছে।

 

করোনা ঠেকাতে এর আগে ২২ মার্চ করোনার সুরক্ষা সামগ্রী পিপিই, জীবাণুনাশক হ্যান্ড স্যানিটাইজারের কাঁচামাল, করোনাভাইরাস পরীক্ষার কিট ও রি–এজেন্ট, সার্জিক্যাল মাস্ক ইত্যাদি আমদানিতে করছাড় দিয়ে আদেশ জারি (এসআরও) করে এনবিআর।

এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা রহমতুল মুনিম সই করা আদেশে বলা হয়, এ ধরনের ১৭টি আইটেম আমদানিতে সব ধরনের আমদানি শুল্ক, রেগুলেটরি শুল্ক, সম্পূরক শুল্ক, ভ্যাট, আগাম কর ও আগাম আয়করসহ সব কর অব্যাহতি দেওয়া হলো। দেশে এসব সরঞ্জাম ও উপকরণের অভাব রয়েছে। মানুষ বাজারে জীবাণুনাশক পাচ্ছে না। কোম্পানিগুলো কাঁচামালের অভাবের কথাও বলছে।

করোনা মোকাবিলায় সারা দেশে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরশনের (বিসিক) শিল্পনগরীগুলোতে তৈরি হচ্ছে পিপিই, মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার। এছাড়া দেশের বেশ কিছু পোশাক কারখানা পিপিই তৈরি করছে, জীবাণুনাশক তৈরি করছেন ওষধ কোম্পানিসহ কয়েকটি কোম্পানি।

Sharing is caring!