Sharing is caring!

নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ

 

বাংলাদেশ পুলিশের চট্রগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মো. আনোয়ার হোসেন পিপিএম (বার) বলেছেন, পুলিশকে সব শ্রেণি পেশার মানুষের সাথে সম্পর্কের আরও উন্নয়ন ঘটাতে হবে। জনগণকেও আরও সচেতন হতে হবে। পুলিশ বাহিনীকে আরও এক্টিভ হয়ে তাদেরকে রিডিং রোলটা বের করতে হবে। এধরনের বিভৎস ঘটনা যেন আর না ঘটে, এজন্য আমাদের সকলকে সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে এবং সচেতন মহলও পুলিশকে সহযোগিতা করতে হবে। কোন ঘটনা ঘটলে, তার সত্যতা প্রাপ্তির সাথে সাথে ওই ঘটনার সাথে জড়িত প্রত্যেকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

শনিবার দুপুরে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ মডেল থানার আয়োজনে একলাশপুর ইউনিয়নে নারী ধর্ষণ ও নির্যাতন বিরোধী বিট পুলিশিং সমাবেশ শেষে গণমাধ্যম কর্মীদের সাথে এসব কথা বলেন তিনি।

ডিআইজি বলেন, একলাশপুর ইউনিয়নের জয়কৃষ্ণপুর গ্রামের খাল পাড়ে চাঞ্চল্যকর গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ঘটনাটি ৩২দিনেও আমরা জানতে পারিনি। আমি চেষ্টা করেছি, এঘটনাটি বের করতে। ঘটনার ভিকটিম তার বাড়ীর সবচেয়ে নিকটবর্তী তার চাচার যে ঘর, সে চাচাও ঘটনাটি জানতে পারেনি। ভিকটিম এবং তার স্বামী যে ঘরে উপস্থিত ছিলেন, তাদের দু’জনের একজনও যদি আমাদেরকে ঘটনাটি জানাতেন তাহলে আমাদের পক্ষে জানা এবং ব্যবস্থা গ্রহণ করা সহজ হতো। নির্যাতিতা ঘটনাটি স্থানীয় মেম্বার মোজাম্মেল হোসেন সোহাগকে জানিয়ে ছিলেন এবং বিচার চেয়েছিলেন। কিন্তু মেম্বারও পুলিশকে ঘটনাটি জানায়নি। কোন ঘটনা ঘটলে যে কোন মাধ্যমে ঘটনাটি পুলিশের নজরে আসতে হবে অথবা পুলিশকে জানাতে হবে। কিন্তু এক্ষেত্রে তা হয়নি।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, জেলা পুলিশ সুপার মো. আলমগীর হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) দীপক জ্যোতি খীসা, বেগমগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহজাহান শেখ প্রমূখ।

Sharing is caring!