Sharing is caring!

তাবলীগ জামাতে যাওয়া দেবনগর ইউনিয়নের নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্যরা। ছবি- সংগৃহীত

ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে ঘোড়া প্রতীক নিয়ে প্রথমবারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন ছলেমান আলী। নির্বাচিত হওয়ার পর পরই নিজেদের আত্মশুদ্ধির জন্য তাবলীগ জামাতে যান তিনি ও নব-নির্বাচিত ইউপি সদস্যরা। ছলেমান আলী পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় উপজেলার ৭নং দেবনগর ইউনিয়ন থেকে বিপুল ভোটে জয়লাভ করেন।

সম্প্রতি গত শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছলেমান আলীর নেতৃত্বে সাধারণ ওয়ার্ডের নির্বাচিত সদস্য ও সংরক্ষিত নারী সদস্যদের স্বামীদের নিয়ে ১৩ সদস্যের একটি দল তাবলীগ জামাতে যান। চেয়ারম্যান-মেম্বারদের তাবলীগ জামাতে যাওয়ার বিষয়টি নিয়ে বেশ আলোচনা চলছে।

তাবলীগ জামাতের নিয়ম অনুযায়ী ১৩ সদস্য বিশিষ্ট ওই দলের (জামাতের) আমীর হিসেবে নেতৃত্ব দিচ্ছেন চেয়ারম্যান নিজেই। ৭ দিনে তারা ২ মসজিদে অবস্থান করবেন তারা। এ বিষয়টি স্থানীয়দের রীতিমতো তাক লাগিয়ে দিয়েছে। এমন উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছে স্থানীয় সচেতন মহল।

জানা গেছে, চেয়ারম্যান ও সদস্যরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে সবাইকে নামাজের জন্য আহবান জানাচ্ছেন। দোকানপাট কিংবা বাজারে স্থানীয় শিক্ষার্থী ও যুবকদের আড্ডা দেওয়া থেকে বিরত রাখতে মসজিদে নামাজের জন্য আহবান জানাচ্ছেন। পাশাপাশি বাড়িতে পড়াশোনার জন্য বলছেন।

স্থানীয়রা জানান- জীবনে অনেক চেয়ারম্যান মেম্বার দেখেছি কিন্তু নির্বাচিত হয়েই তাবলীগে যেতে দেখেননি। নির্বাচনে জয় লাভের নিজেদের আত্মশুদ্ধির জন্য তাবলীগ জামাতে এসেছেন আমাদের জামে মসজিদে। দ্বীনের দাওয়াত দিচ্ছেন। খুব ভালো লাগছে। জনপ্রতিনিধিরা সৎ হলে একজন নাগরিকও তাদের সেবা থেকে বঞ্চিত হতে হবে না।

তাবলীগে যাওয়া ইউনিয়নটির ৪ নম্বর ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম গণমাধ্যমকর্মীদের জানান, ‘প্রথম ইউপি সদস্য নির্বাচিত হয়েছি। চেয়ারম্যান সাব আমাদের ১৩ জনকে নিয়েই তাবলীগ জামাতে নিয়ে এসেছেন এতে আমরা অনেক আনন্দিত। তিনি আমাদের অনেক বিষয়ে শিক্ষা দিচ্ছেন। আমরা সবাই প্রতিজ্ঞা করছি, আমাদের ইউনিয়ন মানুষের সেবা করার জন্য সব সময় প্রস্তুত থাকবো।’

এ বিষয়ে নর্বনির্বাচিত চেয়ারম্যান ছলেমান আলী গণমাধ্যমকর্মীদের জানান, ‘গত ১১ নভেম্বর দেবনগর ইউনিয়নবাসী আমাকে বিপুল ভোটে ভোট দিয়ে আমাকে তাদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত করেছেন। আমার ইউনিয়নের ৯টি সাধারণ ওয়ার্ড ও তিনটি সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডের মহিলা সদস্যদের স্বামীদের নিয়ে আমরা ১৩ জন তাবলীগ জামাতে এসেছি। আগে থেকেই আমরা নামাজ পড়তাম। নিজেদের আত্মশুদ্ধির জন্য আমরা জামাতে এসেছি। আমাদের ভালোই লাগছে।’

প্রসঙ্গত- জানা গেছে, দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠিত হওয়া গত ১১ নভেম্বর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ছলেমান আলী দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে। ঘোড়া প্রতীক নিয়ে প্রথমবারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।

Sharing is caring!