Sharing is caring!

মুক্তি পেয়েছে বাহুবলি খ্যাত পরিচালক এসএস রাজামৌলির নতুন সিনেমা ‘আর আর আর’। ভারতে একসঙ্গে প্রায় আট হাজার সিনেমা হলে মুক্তি পেয়েছে ছবিটি। সিনেমাটিতে অভিনয় করেছেন ভারতের দক্ষিণী তারকা জুনিয়র এনটিআর, রাম চরণ। আরও রয়েছেন আলিয়া ভাট ও অজয় দেবগণ। মুক্তির প্রথম দিনেই ভারতজুড়ে হইচই ফেলে দিয়েছে সিনেমাটি। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের খবর, দর্শক চাহিদার কারণে দিল্লিতে বেশ কিছু জায়গায় ২১০০ ভারতীয় রুপিতে (বাংলাদেশি মুদ্রায় ২৩০০ টাকার বেশি) সিনেমাটির টিকিট বিক্রি হচ্ছে। এরপরেও নাকি টিকিট পাচ্ছেন না অনেকেই।

এদিকে, ‘আর আর আর’ মুক্তির প্রথমদিনের প্রচুর উচ্ছ্বাসের পাশাপাশি একটি দুঃসংবাদও পাওয়া গেছে। সিনেমাটি দেখতে গিয়ে হার্ট অ্যাটাকে মৃত্যু হয়েছে এক ভক্তের। জানা যায়, ওই যুবকের নাম ওবু লেসু। তিনি অন্ধ্রপ্রদেশের অনন্তপুরের বাসিন্দা। ওবু কয়েকজন বন্ধুর সঙ্গে এসভি থিয়েটারে ‘আর আর আর’ দেখতে গিয়েছিলেন। সিনেমা চলাকালীন সময়েই হার্ট অ্যাটাকের করেন। এরপরেই ওবুকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলেও রাস্তাতেই মৃত্যু হয় তার। এরপর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা মৃত বলে ঘোষণা করেন।

করোনার কারণে দীর্ঘদিন আটকে ছিল ‘আর আর আর’ সিনেমার মু্ক্তি। এ কারণেই এনটিআর এবং রাম চরণের ভক্তরা রীতিমত আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষায় ছিলেন সিনেমাটি পর্দায় দেখার জন্য। অনেকেই বলছেন, নির্মাতা রাজামৌলির আগের সিনেমা ‘বাহুবলী’র রেকর্ডও ভেঙে দিতে পারে ‘আর আর আর’ । দুই তেলেগু মু্ক্তিযোদ্ধা কমারাস ভীম ও আলুরি সীতারাম রাজুর জীবনকাহিনী তুলে ধরা হচ্ছে ‘আরআরআর’ সিনেমায়। এর আগে বেশ কয়েকবার সিনেমাটির মুক্তি ঘোষণা করা হয়েছিল। কিন্তু করোনার কারণে একাধিকবার এর মুক্তি পেছায়। অবশেষে ২৫ মার্চ তেলেগু ও তামিলের পাশাপাশি মালায়ালাম, হিন্দি, কন্নড়সহ বেশ কয়েকটি ভাষায় সিনেমাটি মুক্তি পেয়েছে।

এদিকে, মুক্তির আগে নাকি ‘আরআরআর’ ৮০০ কোটি রুপি আয় করেছে। এরমধ্যে সিনেমা স্বত্ব বিক্রিসহ গানের আয়ও রয়েছে। সিনেমাটির মোট বাজেট ৪০০ কোটি রুপি বলে শোনা যায়। উত্তর ভারতীয় স্বত্ব থেকে এটি পেয়েছে ১৩৫ কোটি।

Sharing is caring!